রহিমার মায়ের স্মার্টফোন কেনা !

0
63

রহিমার মায়ের খুব শখ একটা স্মার্টফোন ব‍্যবহার করবেন। তাই আগ্রহ নিয়ে ফোন কিনতে গেলেন বসুন্ধরা শপিং সেন্টারে। ফোনের দোকানগুলো সামনে যেতেই একটা দোকান থেকে ডাকা হচ্ছে, ম‍্যাম আমাদের শো-রুম আসুন প্লিজ, প্লিজ আসুন। সর্বশেষ প্রযুক্তির সব ফোন আছে আমাদের কাছে।

দোকারদার কত কষ্ট করে বাহিরে দাঁড়িয়ে থেকে ডাকছে। তাই দয়া হলো রহিমার মায়ের। তিনি দোকানটিতে গিয়ে বললেন, আমাকে একটা স্মার্টফোন দেখান।

কুদ্দুস নামে দোকানদার একটি ফোন বের করে বলল, আপু এটাই বিশেষ ও সর্বশেষ প্রযুক্তি ফোন।

রহিমার মা বলল, এই ছেলে তুমি আমাকে আপু বলছো কেন? তুমি জানো আমার বয়স তোমার মায়ের সমান।

কুদ্দুস মিষ্টি করে হেসে বলল, কি যে বলেন আপনি। আমাদের এই বিশেষ ফোন দিয়ে আপনি সেলফি ছবি তুললে আপনার বয়স কমে যাবে। আপনাকে মনে হবে ২১ বছরের তরুণী। তাই আপনাকে আপু বলা।

রহিমার মা খুব আগ্রহ পেলেন। তিনি ভালবেন, বাহ প্রযুক্তি কত এগিয়ে গেছে। ফোনে ছবি তুললেই বয়স কমে যাবে। দারুণ তো। তিনি বললেন, আচ্ছা একটা ছবি তুলে দেখান তো।

কুদ্দুস বিশেষ ফোনটি দিয়ে রহিমার মায়ের একটা ছবি তুলে দিলেন। তারপর ছবিটি দেখে রহিমার মা বলল, আরে এই ছবি দেখে তো মনে হচ্ছে আমি মুখে মেকআপ দিসি। বয়স কমলো কই?

কুদ্দুস আবার মিষ্টি হাসি দিয়ে বলল, আপু এই বিশেষ ফোনটির সাহায‍্যে আপনি ছবি তুললে অটোমেটিক মেকআপ করে দিবে। এই বিশেষ প্রযুক্তি স্পেশাল এআই দিয়ে তৈরি। মেয়েদের মুখে কত দাগ থাকে, চোখের নিচে কালি পরে এবং গায়ের রং কালো থাকে। ফলে ছবি তুললে সুন্দর আসে না। এই ফোনটি দিয়ে ছবি তুললে সব সমস‍্যার সমাধান হবে। চেহারা হবে ফকফকা। তারপর ছবিটি আপনি ফেইসবুকে আপ দিলে নিশ্চিত ১ হাজার লাইক পাবেন। ফোনটি বিশেষ করে মেয়েদের জন‍্য তৈরি।

১৫ মিনিট কুদ্দুস বর্ণনা করলো কিভাবে এই ফোন মেয়েদের চেহারা সুন্দর করে।

রহিমার মা বলল, আচ্ছা এবার থামো। ফোন দিয়ে কি শুধু চেহারা সুন্দর করা যায়? ফোনটি দিয়ে কি কথা বলা যায় না?

কুদ্দুস মিষ্টি করে হাসি দিয়ে অবাক হওয়ার ভান করে বলল, কি যে বলেন আপু, আমাদের বিশেষ ফোনটি দিয়ে তো কথা বলা যাবেই। সেই সাথে এতে আছে বিশেষ মাইক্রোফোন যা দিয়ে কথা বললে কন্ঠ সুন্দর শুনাবে।

রহিমার মা বলল, তুমি যেভাবে ১৫ মিনিট ছবি তোলার ফিচার নিয়ে বলতেছিলা, আমার মনে হয়েছিলো এই ফোন শুধু মাত্র মেকআপ ছবি তোলার জন‍্য। এই ফোনের অন‍্য কোন কাজ নাই।

কুদ্দুস হাসতে হাসতে বলল, আপু বসেন এক কাপ কফি খান। তারপর ফোনটি নিয়ে যান। আপনার বয়স কমে যাবে নিশ্চিত। আর ফেইসবুকে পাবেন হাজার হাজার লাইক।

রহিমার মা কফি খাওয়া শুলো করলো। তারপর তিনি বিশেষ ফোন কিনলেন কিনা জানা গেলো না।

বি:দ্র: এই গল্প কাকতালীয়, বাস্তব‍ কোন ফোন ব্র‍্যান্ড বা দোকানের সাথে মিলে গেলে লেখক দায়ী নয়!