যেমন আছি এই আমি?

0
106

মাঝে মাঝে আমি নিজেকে নিজে প্রশ্ন করি আচ্ছা আমি কেমন আছি? আমি কি সত্যি ভালো আছি? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে আমি নিজেই থমতে দাঁড়াই। আসলেই কি এই প্রশ্নের উত্তর আছে আমার কাছে? শুধু কি আমার কাছে নাকি আমাদের চারপাশের কাউও কাছেই এই প্রশ্নের উত্তর নেই?

আমরা আমাদের ভালো থাকাটি কিভাবে নির্ধারণ করি? আমাদের যত চাহিদা সব পূরণ হলেই কি ভালো থাকা যায়। ধরুন, আমার বহুদিনের ইচ্ছা যদি একটি পাহাড়ের উপর বাড়ি বানাতে পারতাম কিংবা মাঝ সমুদ্রের মাঝে জাহাজের ছাদে শুয়ে রাতের তারা দেখতে পারতাম। আলাদীনের এক দৈত্য এসে আমার ইচ্ছা পূরণ করে দিলো। বাহ তাহলেই আমি পৃথিবীর সবচেয়ে সুখী মানুষ।

কিন্তু এই সুখী অনুভূতি থাকবে কয়দিন? ২৪ ঘণ্টা না ঘুরতেই আমাদের নতুন চাহিদা জন্ম নিবে। সেই চাহিদা পূরণ না হওয়ার পর্যন্ত আবার অসুখী। তখন কেউ প্রশ্ন করলে মনে খারাপ থাকলেও আমরা সুখী হওয়ার অভিনয় করব। আমরা তো সুখী নয়। কেননা আমাদের চাহিদাগুলো অপূর্ণ। চাহিদাগুলো অপূর্ণ রেখে কি সুখী হওয়া যায়?

কোন এক কবিতায় পড়েছিলাম ‘সুখী হওয়ার সবচেয়ে সহজ উপায় হলো বিবেকহীন হওয়া। যার বিবেক বেঁচে থাকে সে সুখী হতে পারে না’। মাঝে মাঝে এই লাইনগুলো খুব সত্যি মনে হয়।

এবার আমার নতুন প্রশ্ন জন্ম দিলো। বিবেক আর চাহিদা কি এক জিনিস? এই দুইটিই কি তাহলে আমাদের অসুখী হওয়ার কারণে?

বিবেকের সাথে জরিতে যে শব্দটি তা হলো মন। তাহলে বিবেক কি আর মনই বা কি?

ধরুন আপনার খুব ইচ্ছা করছে মিষ্টি খেতে। মিষ্টি খেতে পারলে আপনি সুখী হবে। কিন্তু মিষ্টি খেতে গিয়ে আপনার মনে হলো, আরে আমি তো মিষ্টি থেকে পারব না। কেননা আমার ডায়াবেটিস। এই যে আপনাকে মনে করিয়ে দিলো এটি আপনার জন্য খারাপ এটাই বিবেক। মন যা চাইবে বিবেক যখন বাধা দিবে তখন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের মতই আপনার ব্রেনে চলবে চমৎকার এই যুদ্ধ। এই যুদ্ধে জয়ী কে হবে তা নির্ভর করবে আপনার বিবেক বেশি শক্তিশালী না মন? যদি বিবেক সেই সময় শক্তিশালী হয় তাহলে হয় আপনি সুখী হবেন না কেননা আপনি বিবেকের তাড়না থেকে মিষ্টি খেতে পারবেন না।

তাহলে কি বিবেককে ছাড় দিব আমরা? না। তাহলে যে আমাদেরই অমঙ্গল হতে পারে। তাহলে আমাদের কি উচিত? বিবেক কিংবা মন কোনটাকে বেশি গুরুত্ব দিব? এই প্রশ্নের উত্তর আমার জানা নেই। আপনি ভেবে বলুন তো আমাদের বিবেক নাকি মনকে বেশি গুরুত্ব দেয়া উচিত?

চাহিদা ব্যাপারে আসি। ধরুন আপনার একটি ফিচার ফোন আছে। তখন আপনার মন বলবে আহা যদি আমি স্মার্টফোনটি কিনতে পারতাম। স্মার্টফোন কেনার পরে মনে হয়ে এই ব্র্যান্ডটা ভালো নয় আইফোন কিনি। আইফোন কিনলেন। সেটা কিনার পরে বছর ঘুরতেই নতুন আইফোন আসবে তখন আপনার মন আরও উদাস হয়ে যাবে নতুন আইফোনের জন্য। এভাবে আমাদের চাহিদা বাড়বেই।

তাহলে কি আমরা সুখী না? চাহিদা জন্যও অসুখী মনে হয়। চলবে এই জীবনের যুদ্ধ……..চাহিদা বনাম অসুখী। আচ্ছা একটি প্রশ্ন আমি নিজেকে নিজে খুঁজি। আসলেই কি আমি খুশি আসলেই কি আমি সুখী আসলেই কি আমার হাসিটা কৃত্রিম নয়?