নজরকাড়া ফিচারে অল ইন ওয়ান উইন্ডোজ ১০

0
8

বহুল ব্যবহার যদি জনপ্রিয়তার মাপকাঠি হয় তাহলে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সফটওয়্যার মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম। এই একটি সফটওয়্যার দিয়ে বিল গেটসের কোম্পানিটি সেই কবে বাজিমাত করেছিল। বাজির সেই ঘোড়া এখনও জয়রথ ছুটিয়ে চলছে।

২০০ কোটির বেশি ব্যবহারকারী বিশ্বজুড়ে এ সফটওয়ারের বর্তমানের জনপ্রিয় ভার্সন উইন্ডোজ ৭ব্যবহার করেছে। পরের সংস্করণ উইন্ডোজ ৮ জনপ্রিয়তা না পেলেও তার ব্যবহারকারী কয়েক কোটি। এক্সপি কিংবা আরও পুরনো সংস্করণের ব্যবহারকারী এখনও কম নয়। এ হিসাব অফিশিয়াল। এর বাইরে কপি করে যে কত শত কোটি উইন্ডোজ ব্যবহার হয় তার হিসাব নেই।

এ কারণে উইন্ডোজের সব কিছুই সব সময় বড় খবর। আর এই অপারেটিং সিস্টেমের কোনো পরিবর্তন মানে সেটি বিশেষ খবরের তকমাকেও ছাড়িয়ে যায়।

উইন্ডোজ ১০-টেকশহর

সেই বিশেষ খবরের জন্ম দিয়েছে মাইক্রোসফট। বুধবার সফটওয়্যার জায়ান্টটি একেবারে উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেম আনার ঘোষণা দিয়েছে। উইন্ডোজ ৯ এর বদলে এ ঘোষণা প্রযুক্তি বিশ্বকে অবাক করেছে।

যদিও আপগ্রেডের আড়ালে ঘনঘন নতুন সংস্করণ আনাকে অনেকেই মাইক্রোসফটের অতিমাত্রায় মুনাফামুখী হওয়ার প্রবণতার সমালোচনা করছেন। কেননা এক একটি আপগ্রেড পেতে খরচ করতে হয় কাড়ি কাড়ি টাকা।

তবে এর চেয়েও অবাক করার মতো ঘটনা লুকিয়ে আছে উইন্ডোজ ১০ এর ফিচারের মধ্যে। ব্যবহারকারীদের উপযোগী করে চমৎকার সব ফিচারযুক্ত করা হয়েছে নতুন এ অপারেটিং সিস্টেমটিতে। নতুন সংস্করণে ঢেলে সাজানো সেই সব ফিচার নিয়ে এ প্রতিবেদন।

উইন্ডোজ ৮ অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারকারীদের কাছে তেমন সাড়া পাইনি। বিশেষ করে স্টার্ট মেন্যু না থাকাকেই প্রযুক্তি বিশ্লেষকরা মুখ ফিরিয়ে নেওয়ার মূল কারণ হিসাবে উল্লেখ করেছেন। এ কারণে মাইক্রোসফট দীর্ঘ দিন ধরে থেজারশোল্ড নামের প্রকল্পের আড়ালে এ সফটওয়ারকে আপগ্রেড করেছে। ঢেলে সাজিয়েছে উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমটি।

অল ইন ওয়ান
দিন দিন ডিভাইসের আকার বদল হচ্ছে। এক যুগে আগে কেউ ভাবেনি কম্পিউটার টেবিল থেকে হাতের মুঠোয় চলে আসবে। ট্যাব, ফ্যাবলেট ও স্মার্টফোনের কল্যাণে সেটিই সম্ভব হয়েছে।

ডেক্সটপ কম্পিউটারের পাশাপাশি এগুলোর জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই প্রতিটি ডিভাইসের জন্য আলাদা কোনো অপারেটিং সিস্টেম নয়। সকল ডিভাইস চলবে একই অপারেটিং সিস্টেম এবং  একই অ্যাপ্লিকেশনে । নতুন উইন্ডোজ ১০ এর মাধ্যমে মাইক্রোসফট সে কাজটিই করেছে।

Screenshot_5

৪২ ইঞ্চি মনিটরে যেমন কাজ করবে উইন্ডোজ ১০, তেমনি ৫ ইঞ্চি স্মার্টফোনেও তেমনি কাজ করবে। চলবে এক্স বক্স ওয়ানও। তাই ব্যবহারকারীদের এখন প্রতিটি ডিভাইসের জন্য আলাদা অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে দ্বিধা ও বিভ্রান্তিতে পরতে হবে না।

ফিরে এলো স্টার্ট মেন্যু
উইন্ডোজের নতুন সংস্করণ বাজারে আসার আগে সবচেয়ে বেশি আলোচিত বিষয় ছিল স্টার্ট মেুন্য। প্রযুক্তি সংবাদ মাধ্যমগুলোতে এ নিয়ে ফাঁস হয়েছে নানা তথ্য। এমনকি ফাঁস হয়েছিল নতুন স্টার্ট মেন্যুর ছবি। ফাঁস হওয়া তথ্যের সঙ্গে যথার্থভাবেই মিলে গেছে নতুন উইন্ডোজ ১০ এর স্টার্ট মেুন্যুর ছবি।

tech-windows-10-1

উইন্ডোজ ৮ অপারেটিং সিস্টেমে স্টার্ট মেন্যু না থাকায় সমালোচনায় পড়েছিল সফট জায়ান্টটি। তবে এবার একই ভুল আর করেনি বিল গেটসের প্রতিষ্ঠানটি।

নতুন র্স্টার্ট মেন্যুটি উইন্ডোজ ৭ এর মতো হলেও এটির ডান দিকে যুক্ত করা হয়েছে লাইভ টাইলস সুবিধা। এ ছাড়া রয়েছে উইন্ডোজ ৮ এর মতো মেট্রো সুবিধা।

একই সঙ্গে উইন্ডোজ ৭ এবং ৮ এর অভিজ্ঞতা
এখনও বিপুল সংখ্যাক ব্যবহারকারী উইন্ডোজ ৭ ব্যবহার করছেন। তবে উইন্ডোজ ৮ ব্যবহারকারী সংখ্যাটা বেশ কম।  একটি অপারেটিং সিস্টেমে অভ্যস্থ হওয়ার কারণে নতুন অপারেটিং সিস্টেমে যাওয়া অনেক ব্যবহারকারীদের জন্য বেশ কষ্টসাধ্য। তাই  উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমে উভয় সংস্করণের স্বাদ পাওয়া যাবে।

মাইক্রোসফটের কর্পোরেট ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বেলিফ মজা করে  বলেন, “আমরা তাদের এই ধারণা দিতে চাই যে গতকাল তারা চালাচ্ছিলেন প্রথম প্রজন্মের প্রিয়াস আর এখন তাদের কাছে আছে উইন্ডোজ ১০, যা হচ্ছে অত্যাধুনিক টেসলা।”

উন্নত টাচ ফিচার
উইন্ডোজ ৮ অপারেটিং সিস্টেম দিয়ে টার্চ নির্ভর উইন্ডোজচালিত ডিভাইসের যাত্রা শুরু । আগের টাচ ফিচারের বেশ কিছু বাগ বা ক্রুটি দূর করে একে সম্পূর্ণ গতিশীল এবং উন্নত মানের সুবিধা যুক্ত করা হয়েছে নতুন অপারেটিং সিস্টেমে।

আঙ্গুলের স্পর্শের সাহায্যে জুম আউট, জুম করা, ক্রল ইত্যাদি করা যাবে খুব সহজে।

কি-বোর্ডের চমৎকার ফিচার
কি-বোর্ডের চমৎকার ফিচারটি সারফেস ট্যাবলেট ব্যবহারকারীদের বেশি কাজে লাগবে।  এ ফিচারের ফলে উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমচালিত ট্যাবে কি-বোর্ড যুক্ত করলে নোটিফিকেশনে দেখা যাবে ব্যবহারকারী কোন মোডে ডিভাইসটি ব্যবহার করতে চান। ট্যাব নাকি ডেক্সটপ মুডে।

অসাধারণ এ ফিচার সারফেস ডিভাইসের ব্যবহারকারীদের জন্য আর্শীবাদ স্বরুপ।  এখন ব্যবহারকারীরা সহজে মুড পরিবর্তন করে ডিভাইসটি ব্যবহার করতে পারবে। আগে যে সুবিধা ছিল না।

ভার্চুয়াল ডেস্কটপ
অনেক সময় কাজের প্রয়োজনের একই সঙ্গে কয়েকটি উইন্ডো ওপেন করার প্রয়োজন হয়। লিনাক্স কিংবা ম্যাকে এ কাজের জন্য ভার্চুয়াল ডেক্সটপ ফিচার আছে । যার সাহায্যে একাধিক উইন্ডো খুলে রাখা যায় আলাদা করে।

কাজ করা সময় যেন মনে হয়ে আলাদা আলাদা মনিটরে  কাজ করা হচ্ছে, সেই অনুভুতি হয়। এ রকম সুবিধা নিয়ে হাজির হলো উইন্ডেজ ১০।

Windows-9-Preview-Build-9834-1410516413-0-0

ভার্চুয়াল ডেস্কটপ সুবিধারটির সাহায্যে একই সঙ্গে চারটি ডেস্কটপ ওপেন করা যাবে। নতুন অপারেটিং সিস্টেমতে রয়েছে ‘task view’ বাটন। এটির সাহায্যে ভার্চুয়ার ডেস্কটপে পরিনত করা যাবে যে কোনো উইন্ডোকে।

কমান্ড প্রম্পটে কাজ করবে কি-বোর্ড শর্টকাট
বর্তমানে  কমান্ড প্রম্পটে কি-বোর্ড শর্টকাট করা করে না।  ctrl+ v এবং ctrl+c এর মতো শর্টকাটগুলো কাজ করবে উইন্ডোজ ১০ এর কমান্ড প্রম্পটে। ফলে কমান্ড ব্যবহার করা আরও সহজ হবে যে কোন ব্যবহারকারীদের জন্য।

কবে পাওয়া যাবে উইন্ডোজ ১০?
এত সব ফিচার দেখে কি এখনই উইনডোজ ১০ ব্যবহার করতে ইচ্ছা করছে?  তবে চাইলেও এখনই ডাউনলোড করার সুযোগ নেই। ব্যবহার করার ইচ্ছাটাকে দমিয়ে রাখতে হবে আগামী বছর পর্যন্ত।

বুধবার এ বিষয়ে ঘোষণা দেওয়ার পর কিছু ফিচারের কথাও জানিয়েছে মাইক্রোসফট। বাজারে আনার সুনির্দিষ্ট দিন তারিখ না জানালেও তা হবে আগামী বছর। তবে চাইলে ডেভেলপার প্রিভিউ সংস্করণটি ডাউনলোড  করে ইন্সটল করে উইন্ডোজ ১০ এর স্বাদ নেওয়া যাবে।

দাম কত হবে?
মাইক্রোসফট অফিসিয়ালভাবে এখনো উইন্ডোজ ১০ এর মূল্য সম্পর্কে কোনো তথ্য প্রকাশ করেনি। তবে বর্তমানে উইন্ডোজ ৮ ব্যবহারকারীরা বিনামূল্যে উইন্ডোজ ১০ আপডেটের সুযোগ পাবেন।

এর আগের সংস্করণের ব্যবহারকারীদের তা কিনতে হবে গাটের পয়সা খরচ করে। তার মানে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি উইন্ডোজ ৭ ব্যবহারকারী গ্রাহকদের তা কিনতে হবে। মাইক্রোসফটের অফিসিয়াল তথ্য অনুযায়ী এ সংস্করণের ব্যবহারকারী ২০০ কোটির বেশি। আর এ সংস্করণের অফিসিয়াল সাপোর্ট টেক জায়ান্টটি বন্ধ করে দেবে ৩০ অক্টোবর থেকে।

লেখাটি পূর্বে প্রকাশিত হয়েছিলো: টেকশহরে